ICT Bangla Tutorial for HSC SSC Job Seeker Chapter 1 class assignment

আমাদের এই কোর্সটি সাজানো হয়েছে এসএসসি এবং এইচএসসি লেভেলের স্টুডেন্টদের জন্য, তবে এই কোর্সটিতে যে কেউ অংশগ্রহণ করতে পারবেন। এসএসসি এবং এইচএসসির যে আইসিটি সিলেবাস তাঁর মূল বিষয়গুলো এই কোর্সে কভার করা হয়েছে। তাই এই কোর্সটি যারা করবেন তারা একাডেমিক সাবজেক্টে ভালো মার্ক তুলতে পারবেন বলে আশা করা যায়।

পাশাপাশি চাকরিজীবী ব্যাবসায়ি সবারই আইসিটির একদম বেসিক বিষয়গুলো জানা থাকা দরকার, তারা এই কোর্সের মাধ্যমে সেই বেসিক ধারনাটি অর্জন করতে পারবেন।

পেন্টানিক আইটির আর সবগুলো কোর্সের মত এই কোর্সটিও আপনারা ইউটিউব থেকে কমপ্লিট করলে সার্টিফিকেট পাবেন, তার জন্য প্রতিটি ভিডিওতে এসাইনমেন্ট দেয়া থাকবে, সেই এসাইনমেন্টগুলো আপনাদের সাবমিট করতে হবে। এসাইনমেন্ট কিভাবে সাবমিট করতে হয় তাঁর উপর আমাদের একটি ভিডিও রয়েছে, সেই ভিডিওটি এই ভিডিওর ডিসক্রিপশন লিংকে দেয়া থাকবে। এছাড়াও ক্লাসে কোথাও বুঝতে সমস্যা হলে আমাদের ফেসবুক গ্রুপে পোস্ট দিলে সাপোর্ট পাবেন। ফেসবুক গ্রুপের লিংকও ভিডিওর ডিসক্রিপশনে দেয়া থাকবে।

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বলতে কি বোঝায়?

বিভিন্ন ডিজিটাল মাধ্যম ব্যাবহার করে তথ্য সংগ্রহ, সংরক্ষণ, প্রক্রিয়া এবং বিতরনের পদ্ধতিকে বলা হয় তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি। পূর্বে এই কাজগুলো শুধুমাত্র কম্পিউটার ব্যাবহার করে করা হলেও বর্তমানে মোবাইল ও বিভিন্ন স্মার্ট ডিভাইস ব্যাবহার করে আইসিটির কাজ করা হয়।

গতানুগতিক পদ্ধতির সাথে আইসিটি সেবার পার্থক্য আমরা একটি উদাহরনের মাধ্যমে সহজেই বুঝে নিতে পারি।  ধরি, একটি স্কুলে ছাত্ররা ভর্তি হওয়ার সময় একটি ফর্ম পূরণ করে ভর্তি হল, ফর্ম থেকে সেই তথ্যগুলো লেখা হল হাজিরা খাতায়, পরীক্ষা নেয়া হল খাতায়, সেই খাতা আবার মূল্যায়ন করে দেয়া হল রেজাল্ট কার্ড বা মার্কশিট। এটি হচ্ছে গতানুগতিক তথ্য প্রক্রিয়াকরণ পদ্ধতি।

কিন্তু আধুনিক যুগে এই কাজটি এভাবেও করা যায় যে, একজন ছাত্র অনলাইনে ফর্ম পূরণ করলেই তাঁর আবেদন হয়ে যায়, সেই তথ্য অটোমেটিক চলে যায় হাজিরায়। কেউ যখন স্কুলে ঢোকার সময় ফিংগারপ্রিন্ট দেয়, সেখান থেকে হাজিরা হয়ে যায়, কোন ছাত্র স্কুলে না আসলে তাঁর অভিভাবকের মোবাইলে একটি এসএমএস চলে যায়। পরিক্ষাও দিতে পারে অনলাইনে। সেই পরিক্ষার মার্ক অটোমেটিক সফটওয়্যারে হিসাব নিকাশ হয়ে মার্কশিট এর সফটকপি চলে যেতে পারে স্টুডেন্টের হাতে।

আর এভাবেই আইসিটি ব্যাবহার করে আমাদের দৈনন্দিন জীবনকে অনেক সহজ সাবলিল করে তোলা যায়।

তথ্য প্রযুক্তির যে যুগান্তকারী পরিবর্তনগুলো

  • ইমেইলের মাধ্যমে সহজেই বিশাল বিশাল তথ্যভান্ডার এক জায়গা থেকে দূরবর্তী যে কোন জায়গায় পাঠানো যায়
  • নগদ টাকা মুহূর্তেই লেনদেন করা যায় অনলাইন ব্যাংকিং অথবা মোবাইল ব্যাংকিং সার্ভিস ব্যাবহার করে।
  • স্কুল কলেজে ভর্তির আবেদন, রেজাল্ট পাওয়া, চাকরির আবেদন সবই করা যায় ঘরে বসে।
  • শেখার জন্য অনলাইন হতে পারে বিশাল তথ্যভান্ডার। আপনারা এখন যেই কোর্সটি করছেন, এটিও তথ্য প্রযুক্তির সুবিধা ভোগ করেই করছেন।
  • দূর দুরান্ত থেকে কর্মীদের মনিটরিং করা যায় আইপি ক্যামেরার মাধ্যমে

আইসিটির সুবিধা আসলে বলে শেষ করা যাবে না। যেদিকেই তাকাবেন সেদিকেই প্রযুক্তি। আর এই প্রযুক্তির ধারায় আপনি পিছিয়ে পড়বেন যদি না আপনার বেসিক নলেজটুকু থাকে। আর সেই বেসিক নলেজটিই আমাদের এই কোর্সে ডেভেলপ করার চেষ্টা করা হয়েছে।

Leave a Reply